এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ২০২৪

এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ২০২৪, মধ্য ইউরোপে অবস্থিত সেনজেনভুক্ত দেশ হচ্ছে এস্তোনিয়া। বর্তমানে এই দেশটিতে দিন দিন কাজের চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই এস্তোনিয়া সরকার বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ওয়ার্ক পারমিটের মাধ্যমে লোক নিয়োগ দিচ্ছে। তাই আপনারা যারা বাংলাদেশ থেকে এস্তোনিয়া ওয়ার্ড পারমিট ভিসার মাধ্যমে যেতে চাচ্ছেন বা যাবেন তাদের অবশ্যই জানতে হবে এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সম্পর্কে।

আবার অনেক বাংলাদেশী আছেন যারা এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সম্পর্কে গুগলের মাধ্যমে বিভিন্ন সময় সার্চ করে থাকেন। তাদের জন্য আজকের এই আর্টিকেলে এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সম্পর্কে যাবতীয় সকল তথ্য তুলে ধরা হবে।  তাই আপনারা যদি আমার এই পোস্টটি সম্পূর্ণ মনোযোগ সহকারে পড়েন আশা করি আপনারা জানতে পারবেন এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সহ আরো বিস্তারিত তথ্য।

এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

তো আপনারা যারা বাংলাদেশ থেকে এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন কিন্তু তারা অতীতে জানেন না এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা কোন কোন কাজে হয়ে থাকে।  আপনি বাংলাদেশ থেকে এস্তোনিয়া যেকোনো ওয়ার্ক পারমিট কাজে যান না কেন আপনার ভিসার মেয়াদ হবে ১ বছর বা ১২ মাস। এরপরে আপনাকে ১ বছর পর পর ভিসার মেয়াদ বাড়াতে হবে তাহলে আপনারা বুঝতেই পারছেন ভিসার মেয়াদ কতদিন পর পর বাড়াতে হয়। তাহলে চলেন আমরা দেখে নেই এস্তোনিয়া পারমিট ভিসার মাধ্যমে কোন কোন কাজের ভিসা এস্তোনিয়া সরকার দিয়ে থাকে।

• ইঞ্জিনিয়ারিং ভিসা।

• ক্লিনার ভিসা।

• কৃষি ভিসা।

• গার্মেন্টস ভিসা।

তোর সম্মানিত পাঠক আপনারা দেখতে পারছেন এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসার মধ্যে এই সকল কাজের ভিসা রয়েছে। এস্তোনিয়া যাওয়ার জন্য আরও একটি বিশেষ তথ্য আপনাদের জানা প্রয়োজন সেটি হচ্ছে আপনি এই সকল ভিসা যেতে চাইলে অবশ্যই আপনার কাজের অভিজ্ঞতা এবং সার্টিফিকেট থাকতে হবে।

এস্তোনিয়া ভিসা ফর বাংলাদেশী

এস্তোনিয়া ভিসা ফর বাংলাদেশী এই বিষয়ে আপনারা যারা জানতে চান। এস্তোনিয়া ভিসা ফর বাংলাদেশী এর মানে হচ্ছে বাংলাদেশীদের জন্য এস্তোনিয়া ভিসা কেমন হবে। এছাড়া আপনারা যদি এস্তোনিয়া ভিসা সম্পর্কে আরও বিস্তারিত তথ্য জানতে চান তাহলে অবশ্যই https://visathing.com/estonia.com এই ওয়েবসাইটেতে ঢুকে সকল ধরনের ইনফরমেশন জানতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ এস্তোনিয়া যেতে কত টাকা লাগে এবং বেতন কত

এস্তোনিয়া বেতন কত

অনেকেই বাংলাদেশ থেকে এস্তোনিয়া যাচ্ছে বা যেতে চাচ্ছে। কিন্তু এস্তোনিয়া যাওয়ার আগে সবার একটি প্রশ্ন থাকে এস্তোনিয়া বেতন কত টাকা? আসলে বেতন নির্ভর করে আপনি কোন ক্যাটাগরির ভিসা এস্তোনিয়া যাবেন তার উপরে। কারণ আপনি যদি এস্তোনিয়া ইঞ্জিনিয়ারিং ভিসাতে বা কৃষি ভিসাতে যান তাহলে আপনার বেতন বেশি পড়বে কারণ বর্তমানে এস্তোনিয়া কৃষি এবং ইঞ্জিনিয়ারিং কাজের চাহিদা বেশি অর্থাৎ যে কাজের চাহিদা বেশি সেই কাজের বেতন বেশি।

আপনার যদি এই সকল কাজের অভিজ্ঞতা থেকে থাকে তাহলে আপনি এস্তোনিয়া গিয়ে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এস্তোনিয়া কৃষি বা ইঞ্জিনিয়ারিং ভিসায় সর্বনিম্ন বেতন হচ্ছে ১৫০০ ইউরো থেকে ১৮০০ ইউরো পর্যন্ত। যা বাংলাদেশি টাকায় ১ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা থেকে ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত। আর আপনি যদি ক্লিনার ভিসা বা গার্মেন্টস ভিসাতে এস্তোনিয়া যান তাহলে আপনার বেতন হবে ৬০০ ইউরো থেকে ৮০০ ইউরো মধ্যে যা বাংলাদেশী ৭০ হাজার টাকা থেকে ৯০ হাজার টাকা পর্যন্ত। আশা করি আপনারা জানতে পেরেছেন এস্তোনিয়া বেতন কত টাকা সেই সম্পর্কে।

সর্বশেষ কথাঃ

সম্মানিত পাঠক আশা করি আপনারা আমার এই সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়েছেন। আমার এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনারা জানতে পেরেছেন এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সহ আরো বিস্তারিত অনেক তথ্য। তো আপনাদের যদি এরকম আরো বিভিন্ন দেশের তথ্য প্রয়োজন হয় তাহলে অবশ্যই আমার এই ওয়েবসাইটটিতে ভিজিট করবেন। আজকের এই আর্টিকেল এর বিষয়ে কোন প্রশ্ন থেকে থাকলে অবশ্যই আপনারা কমেন্ট বক্সে জানাবেন আমি আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো।

Leave a Comment